1. admin@dainikbanglarbani24.com : admin :
  2. daliybanglarbani@gmail.com : razmulhuda :
শিরোনাম :
বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে নবনিযুক্ত ১১ বিচারপতির শ্রদ্ধা dainikbanglarbani24.com বাসভাড়া : মহানগরীতে প্রতি কিমি ৩৫ পয়সা, দূরপাল্লায় বাড়লো ৪০ পয়সা dainikbanglarbani24.com রাজধানীতে গণপরিবহন সংকট, ভোগান্তি চরমে dainikbanglarbani24.com শেখ কামালের সমাধিতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের শ্রদ্ধা dainikbanglarbani24.com টিসিবির পণ্য নিয়ে অনিয়ম করলে কঠোর ব্যবস্থা: বাণিজ্যমন্ত্রী dainikbanglarbani24.com শোকের মাসে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন কর্মসূচি dainikbanglarbani24.com বিএনপির হারিকেন মিছিল দেখে মনে হয় তাদের নির্বাচনী প্রতীক বদলে গেল কি না -তথ্যমন্ত্রী dainikbanglarbani24.com নিজেদের নেত্রীকে মুক্ত করতে পারে না আবার সরকার পতন ঘটাবেঃ সেতুমন্ত্রী dainikbanglarbani24.com বলিউডের অভিনেএী শিল্পা শেঠি ঢাকায় আসছেন dainikbanglarbani24.com ট্রেনের ধাক্কায় ১১ মৃত্যু: গেটম্যান সাময়িক বরখাস্ত dainikbanglarbani24.com
নোটিশ :
দৈনিক বাংলার বাণী নিউজ ২৪ পড়েন, বিজ্ঞাপন দিন। সত্যের সন্ধানে দুর্নীতির বিরুদ্ধে দেশ গড়ার অঙ্গিকার বদ্ধ আমরা।

মাটি দস্যুদের দৌরাত্ম্যে সাভার আশুলিয়া বিপর্যয় উর্বরতা হারাচ্ছে ফসলি জমি। dainikbanglarbani24.com

  • Update Time : বুধবার, ৫ জানুয়ারী, ২০২২
  • ৫০ Time View

মাটি দস্যুদের দৌরাত্ম্যে সাভার আশুলিয়া বিপর্যয় উর্বরতা হারাচ্ছে ফসলি জমি।

ষ্টাফ রির্পোটারঃ  মাটি দস্যুদের দৌরাত্ম্যে সাভার আশুলিয়ায় আশঙ্কাজনক হারে উর্বরতা হারাচ্ছে ফসলি জমি। এ দস্যুরা রাতের আঁধারে সাবাড় করে দিচ্ছে ফসলি জমির ওপরের অতিগুরুত্বপূর্ণ পুষ্টি সমৃদ্ধ মাটি (টপ সয়েল)।

জমি মালিকদের ভুল বুঝিয়ে তারা এ সর্বনাশা কর্মে লিপ্ত। তারা কৃষককে বোঝাচ্ছে, এক বছরের মধ্যেই জমি আবার আগের মতো উর্বরতা হয়ে যাবে।

কিন্তু জেলা কৃষি বিভাগ বলছে, ওপরের মাটি কেটে নিয়ে যাওয়ার ফলে জমির যে ক্ষতি হচ্ছে, তা অর্ধশত বছরেও পূরণ করা সম্ভব নয়।

এলাকাবাসী জানিয়েছেন, জেলার প্রতিটি উপজেলাতেই কৃষি জমির ‘টপ সয়েল’ কেটে চলছে রমরমা ব্যবসা।

আর এসব মাটি কিনছে ইট ভাটাগুলো। প্রশাসন বলছে, অভিযান চলছে।

কিন্তু বাস্তব চিত্র হলো, দিনে অভিযান চললেও মাটি ব্যবসায়ীরা বেছে নিচ্ছেন রাতের আঁধার।অভিযোগ পাওয়া গেছে, সাভার উপজেলার ৩টি থানার বিভিন্ন স্থানে কৃষি ‘টপ সয়েল’ কেটে ইটভাটায় বিক্রি করা হচ্ছে।

এমন চিত্র সাভারের বিভিন্ন থানায় চোখে পড়ছে। কৃষি বিশেষজ্ঞদের মতে, অপরিকল্পিত মাটি কাটায় পরিবেশের বিপর্যয় ঘটছে, ফসলি জমি হারাচ্ছে উর্বরা শক্তি। উপজেলা ভূমি কর্মকর্তাদের এক সূত্রে জানা যায়, সাভারের অন্তগত শিমুলিয়া ইউনিয়নের রাঙ্গামাটি, কাইলারটেক, কোনাপাড়া সহ ধামরাই ইউনিয়নের বাইতগ্রাম, পাড়াগ্রাম, কুলিন্দাগ্রাম এর বিভিন্ন স্থানে মাটি কাটার রমরমা অবস্হা। একই সুএে জানা গেছে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে মাটি কাটা বন্ধ করতে উপজেলা ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালিয়েছে।

ফসলি জমির উপরিভাগের গুরুত্ব প্রসঙ্গে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সাভারের উপ-পরিচালক বলেন, কৃষিকাজের জন্য টপ সয়েল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এটি দীর্ঘদিন ধরে প্রাকৃতিকভাবে ও জৈব ব্যবস্থাপনার ফলে মাটির ওপরের ৬-৭ ইঞ্চি জমির প্রাণশক্তিতে পরিণত হয়। এ টপ সয়েল সরিয়ে নিয়ে মাটির গুনাবলী নষ্ট হয়ে যায়। এর ফলে যে মাটি জমিতে থাকে তা ফসল ফলানোর জন্য উপযুক্ত থাকে না।

তিনি বলেন, টপ সয়েল কাটার ফলে জমির যে ক্ষতি হবে তা ৫০ বছরেরও পূরণ করা সম্ভব নয়। মাটিতে যে জৈব পদার্থ প্রয়োগ করা হয় বা প্রাকৃতিকভাবে যে জৈব পদার্থ যুক্ত হয় তা ধীরে ধীরে হয়। একবার তা কেটে নিলে জমির প্রাণশক্তি ফিরে পেতে দীর্ঘকাল প্রয়োজন হয়।

টপ সয়েল কাটার ক্ষতিকর প্রভাব সম্পর্কে একই দপ্তরের কৃষি প্রকৌশলী জানান, মাটি কাটার ফলে কৃষি জমির ফসল উৎপাদন ৬০ হতে ৭০ ভাগ কমে আসবে। জমিতে স্বাভাবিকভাবে যে ফসল পাওয়া যেত, তা পেতে হলে অতিরিক্ত পরিমাণ খরচ করতে হবে। তবে কোনভাবেই উৎপাদন হার একই হবে না এবং ফসলের গুনাবলী নষ্ট হবে। অতিরিক্ত পরিমাণ রাসায়নিক সার ব্যবহারের ফলে কৃষি জমিতে বিপর্যয় ঘটবে।

কৃষি প্রকৌশলী বলেন, এমনও হতে পারে কোন কোন ফসল ওই জমিতে চাষই করা যাবে না। কারণ জমিতে শিকড় গজানোর জন্য যে পরিবেশ দরকার টপ সয়েল কাটার ফলে তা নষ্ট হয়ে যাবে। এতে করে জমির উর্বরতা শক্তি এবং পানি ধারণ ক্ষমতাও নষ্ট হয়ে যাবে।

উপজেলা ভূমি সূত্রে জানা যায়, গত বংসর জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি মাসে জেলার বিভিন্ন উপজেলায় শুধু মাটি কাটা নিয়েই ১০ টির অধিক ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। এসব অভিযানে মাটি কাটার সরঞ্জাম, মাটি পরিবহনে ব্যবহৃত ট্রাক-পিকআপ জব্দকরাসহ আর্থিক দণ্ড প্রদান করা হয়েছে। ফসলি জমির টপ সয়েল কাটা বন্ধ করতে ভূমি কর্মকর্তা উপজেলায় প্রতিটি স্হানে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করলেও তা বন্ধ হচ্ছে না।

ইটভাটার মালিকরা বলছে, মাটি ছাড়া আমরা ইটভাটা চালাবো কীভাবে। আমরা বলেছি কৃষি জমির মাটি ছাড়া অন্য অন্য মাটি সংগ্রহ করতে। জেলা প্রশাসক বলেন, এজন্য জনগণের সহযোগিতা লাগবে।

এলাকা বাসীর কাছে জানা গেছে , একটি বড় সিন্ডিকেট এ কাজ করছে। এই সেন্ডিকেটের ভেতর খমতাবান ও প্রভাব শালী জনৈক ব্যাক্তিরা রয়েছেন। তথ্য সুএে কয়েকটা মাটিকাটা লেক ভিজিট করে খমতা ধর কয়েকজন মাটি খেকো কনটাক্টরের নাম পাওয়া গেছে তাদের ভেতর পাড়া গ্রামের আবুল হোষেন, বাইত গ্রামের দেলোয়ার সহ আরো জনৈক প্রভাবশালী ব্যাক্তিরা জড়িত।

শিমুলিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বলেন, মাটি পরিবহনে ব্যবহৃত ভারী যানবাহনগুলোর কারণে গ্রামীণ সড়কগুলো বিধ্বস্ত হয়ে যাচ্ছে। বৃষ্টি হলেই তা পিচ্ছিল হয়ে মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ে। তিনি বলেন, সরকারের কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে সড়কগুলো নির্মাণ করলেও এসব কারণে সেগুলো করুণ দশায় উপনীত হয়েছে। শিমুলিয়ার আমতলা থেকে রাঙ্গামাটির রাস্তার বেহাল দশা। এসব সড়কে মাটি পরিবহনে ব্যবহৃত ভারী গাড়ি চলছে। এতে করে সৃষ্ট ধুলোবালির কারণে রাস্তা দিয়ে স্কুলে যাতায়াতকারী শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসীদের ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। এবিষয়ে প্রশাষনের সদয় দৃষ্টির জন্য এলাকা বাসীর দাবি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020 Dainik Banglar bani 24
Customized BY NewsTheme
Design & Develop BY Our BD It